Sunday, July 11, 2010

ওয়াকা ওয়াকা এ ও...

রাত জেগে বিশ্বকাপের খেলাগুলোও দেখে চলছি নিয়মিত। খেলা দেখা মিস করতে আমি কিছুতেই রাজী না। আফটার অল, ইট হ্যাপেনস ওয়ান্স ইন ফোর ইয়ারস! পাড়ার মাঠের খেলা নাকি, বিশ্বকাপ বলে কথা। অবশ্য অস্ট্রেলিয়াতে খেলা দেখে বাংলাদেশের মত মজা আর কই? খেলা শুরু হবার সময় বেশ এক্সাইটেড হয়ে অফিসের সবাইকে এক এক করে জিজ্ঞেস করি, "বিশ্বকাপ শুরু হচ্ছে। অস্ট্রেলিয়া তো আছেই, আর কোন দল তুমি সাপোর্ট কর?" ব্যাটারা কিছুক্ষন বোঝেই না, চোখ কুঁচকে অবশেষে উলটা প্রশ্ন করে, "সকার"? মেজাজটা এমন খারাপ হয়, বিশ্বকাপ তো সকারেরই চলছে, ঢং! অবশ্য এদের বলে আর কি হবে? এরা ক্রিকেটে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েও ক্রিকেটে উৎসাহ নেই, আর তো ফুটবল। সারা বছর আছে শুধু ফুটির তালে।

এখানে খেলাগুলোর টাইমিং খুব ঝামেলায় ফেলে দিয়েছে। রাত বারোটা এবং ভোড় সাড়ে চারটায় হয় খেলাগুলো। সাড়ে চারটার খেলা শেষ হয় ভোর সাড়ে ছয়টায়! কখনও এক ঘুম দিয়ে উঠে খেলা দেখি, কখনও একবারে খেলা দেখে ঘুমাই। ইনফ্যাক্ট আমি অবশ্য বেশিরভাগই টানা জেগে থাকি, যেমন আজ আছি। এমন ব্যাপার দাঁড়িয়ে গেছে, এখন খেলা না থাকলেও ঘুম আসে না রাতে। সারা রাত ধরে জেগে থাকি, পরের দিন অফিসে যাই প্রচন্ড মাথা ব্যথা আর চোখ ব্যথা নিয়ে। আজকের তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচটা না দেখলেও চলতো। কিন্তু আছেই আর মোটে দুইটা ম্যাচ, তারপর তো আবার চার বছর। ততদিনে তো মইরাও যাইতে পারি!

------------------------------------------------
এই পর্যন্ত লিখে খেলার সময় হয়ে গিয়েছিলো সেদিন। পুরো ম্যাচ এত চমৎকার খেলেও উরুগুয়ে শেষমেশ হেরে গিয়েছিলো জার্মানীর কাছে। তবে খেলাটা দেখার মত হয়েছিলো। অন্তত ফাইনাল খেলার মত কনফিউজিং ছিলো না...কনফিউজিং এই অর্থে যে ওটা ফুটবল ছিলো নাকি রেসলিং এটা বুঝতেই প্রথমার্ধ শেষ হয়ে গেলো। স্পেনের এত সুন্দর খেলাটা নেদারল্যান্ডের খেলোয়ারদের কাছে মার খেয়ে খেয়ে তালই খুঁজে পাচ্ছিলো না যেন। দ্বিতীয়ার্ধ থেকে একটু মারামারি কমলেও থামে নি। যাক, ধারাবর্ণনায় কাজ কি? ফাইনালি স্পেন যে শেষ মুহুর্তে গোলটা দিয়ে জিততে পেরেছে এতেই আমি খুশি, শুধু এজন্য নয় যে আমি ফাইনালে স্পেনের সমর্থক ছিলাম, বরং এজন্য যে ওরা আসলেই এবারের কাপটা ডিজার্ভ করে। অবশ্য নেদারল্যান্ডও ফাইনাল ছাড়া টুর্নামেন্টের বাকি খেলায় অপরাজিতই ছিলো। আর খুব ভালো লেগেছে এই মারামারির পুরো ম্যাচে নেদারল্যান্ডের রোবেনের একার দলকে টেনে নিয়ে যাবার প্রচেষ্টা। খেলা শেষ হয়ে যাবার পরে পরাজিত দলের জন্য আমার কেন যেন বরাবরই খুব খারাপ লাগে। কতগুলো কান্নাভেজা, ভীষন হতাশ, যেন সব হারানো সারি সারি মুখ...। খেলা দেখতে এত ভালো লাগে, শুধু এই একটা ব্যাপারই কষ্টের, প্রতিটা খেলায় কাউকে না কাউকে হারতে হয়। হারতেই হয়।

বিশ্বকাপ শেষ হয়ে গেলো। আমার রাত জেগে থাকা এখনও বন্ধ হচ্ছে না। নিয়ম করে ভোর ছয়টা পর্যন্ত জেগে থাকি। ফুটবলীয় জেটলেগ!